রৌমারীতে ৩০ লক্ষ টাকা নিয়ে উধাও এক প্রতারক যুবক

দেশজুড়ে
স্টাফ রিপোর্টারঃ
০৯:৫১:৩২পিএম, ২ মে, ২০২১

বিকাশ, রকেট, নগদ ও ইসলামী ব্যাংক এজেন্ট ব্যাংকিং এর মাধ্যমে ৩০ লক্ষ টাকা নিয়ে রায়হান আহমেদ (২৮) নামের এক প্রতারক উধাও হয়েছেন। এ ঘটনায় রৌমারী থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন ভুক্তভোগী পরিবার। ঘটনাটি ঘটেছে কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার শৌলমারী ইউনিয়নের বাতারগ্রামে।

অভিযোগ ও ভুক্তভোগী পরিবার সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার বাতার গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে রায়হান আহমেদ বিকাশ, রকেট ও নগদ এজেন্ট ব্যবসায়ী। এই সুবাদে সে বিভিন্ন জনের কাছে ব্যবসায়ীক টাকা লেনদেন করে আসতেন। প্রতিদিন গ্রাহকদের সাথে লক্ষ লক্ষ টাকা লেনদেন করত। সর্বশেষ মনোয়ার হোসেন, রৌমারী থানা এলাকার (ডিএসও) কাছ থেকে নগদ একাউন্ট ০১৮১৩৩৩৩৭৭৫ নম্বরে প্রায় সাড়ে ৭ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়। পর্যায়ক্রমে রাব্বির সাড়ে ৩ লক্ষ, সাইফুল্লাহ মাহমুদের ২ লক্ষ, আব্দুল মজিদের ১ লক্ষ, উমর ফারুকের ১ লক্ষ ২৫ হাজার, সফিয়ার রহমানের ৩ লক্ষ, সাকিব উদ্দিনের ৪০ হাজার, আশরাফুলের ১৬ হাজার, মোবারকের ৮০ হাজার, শাহিনের ১ লক্ষসহ বিভিন্ন জনের কাছ থেকে মোট প্রায় ৩০ লক্ষাধীক টাকা হাতিয়ে নিয়ে গাঁ ঢাকা দেয় এবং তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোন নম্বর ০১৯১৭১১৪৪১৪ এখন পর্যন্ত বন্ধ রয়েছে। 

এঘটনার পর ভুক্তভোগী পরিবারগুলো প্রতারক রায়হানের সাথে যোগাযোগ করতে না পারায় স্থানীয় মাতাম্বদের কাছে বিচার চান। ২ এপ্রিল রোববার শৌলমারী ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মো.হাবিবুর রহমান হাবিল এর সভাপতিত্বে এক শালিশী বৈঠক বসেন। ওই শালিশ বৈঠকে প্রতারক রায়হানের মা ও মামা লুৎফর রহমান উক্ত টাকা ফেরত দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন। এঘটনায় থানায় অভিযোগ দায়ের করা হলেও এখন পর্যন্ত কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি।

ভুক্তভোগী রাব্বি বলেন, রকেট একাউন্টের মাধ্যমে আমার কাছে সাড়ে ৩ লাখ টাকা নেয়। পরের দিন দেওয়ার কথা থাকলেও পরে সে পালিয়ে যায়। আমি বর্তমানে পরিবার পরিজন নিয়ে মানসিক চাপে রয়েছি।

রৌমারী থানার (ওসি)  মোন্তাছের বিল্লাহ জানান, প্রতারকের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ পেয়েছি এবং তদন্ত চলছে। এর সত্যতা পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।